ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ এর জীবনী, সাহিত্যকর্ম ও গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তর

ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ একজন বহু ভাষাবিদ ছিলেন। তিনি পশ্চিমবঙ্গের চব্বিশ পরগণার অন্তর্গত পেয়ারা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার জন্মসাল হল ১৮৮৫ সালের ১০ জুলাই । ‍তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতাও করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন ১৯২১ সালে। তিনি ১৯৬০ সালে বাংলা একাডেমীতে যোগ দেন ‘বাংলা ভাষার অভিধান’ সম্পাদনার জন্য। তাকে ’চলিঞ্চু অভিধান’ বলা হয়ে থাকে। ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ ১৯৬৯ সালের ১৩ জুলাই ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। তাকে সমাহিত করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ হলের পাশে। ঐ বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন ঢাকা হলের নাম বদলে রাখা হয় শহীদুল্লাহ হল।

ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ একজন ভাষাতত্ত্ববিদ ছিলেন। বাংলা ভাষা ও বাংলা সাহিত্য সম্পর্কিত গবেষণার জন্য তার নাম বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে উজ্জ্বল হয়ে আছে। তিনি সরবন বিশ্ববিদ্যালয়, প্যারিস থেকে ১৯২৮ সালে পি.এইচ.ডি ডিগ্রি লাভ করেন। তাঁকে ’জ্ঞানতাপস’ অভিধায় অভিহিত করা হয়।

সাহিত্যকর্ম ও গবেষণাঃ

গবেষণামূলক গ্রন্থঃ তিনি ভাষাতত্ত্ববিদ হিসেবে বাংলা ভাষার উপর অনেক গবেষণা করেন। তার কিছু গবেষণা গ্রন্থের নাম হল ‘বাংলা ভাষার ইতিবৃত্ত’, বাংলা সাহিত্যের কথা, ভাষা ও সাহিত্য, বাঙ্গালা ব্যাকরণ।

অনুবাদ গ্রন্থঃ

ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর বেশ কিছু অনুবাদ গ্রন্থ রয়েছে। যেমন, শিকওয়াহ ও জওয়াব-ই-শিকওয়াহ, রুবাইয়াত ই ওমর খ্যায়াম, দীওয়ান-ই-হাফিজ।

বিসিএস, প্রিলিমিনারী ও বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষায় আসা গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নোত্তরঃ

১. বাংলা ভাষার অভিধান সম্পাদনার জন্য ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ বাংলা একাডেমিতে কোন সালে যোগদান করেন?

 ক. ১৯৪৯ সালে খ. ১৯৬০ সালে গ. ১৯৫০ সালে ঘ. ১৯৫৮ সালে

 উত্তরঃ ১৯৬০ সালে।

২. ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর জীবনকাল কোনটি?

 ক. ১৮৮৫ – ১৯৬৯ খ. ১৮৭৫ – ১৯৬৯

 গ. ১৮৮৪ – ১৯৬৯  ঘ. ১৮৮৫ – ১৯৭০

উত্তরঃ ১৮৮৫ – ১৯৬৯

৩. ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ছিলেন প্রধানত –

ক. ভাষাতত্ত্ববিদ খ. সাহিত্যের ইতিহাস রচয়িতা গ. ইসলাম প্রচারক ঘ. সমাজ সংস্কারক

উত্তরঃ ভাষাতত্ত্ববিদ।

৪. ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ এর মৃত্যুদিবস কোনটি?

ক. ১৯৬৪ সালের ১ মে খ. ১৯৬৬ সালের ১ জুলাই গ. ১৯৬৯ সালের ১৩ জুলাই ঘ. ১৯৭০ সালের ১৩ জুলাই।

উত্তরঃ ১৯৬৯ সালের ১৩ জুলাই।

৫. বাংলা সাহিত্য সম্পর্কিত গবেষণার জন্য যার নাম এ দেশের সাহিত্যের ইতিহাসে অত্যুজ্জ্বল হয়ে রয়েছে কার নাম?

 ক. জর্জ আব্রাহম গ্রিয়ারসন খ. সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়

 গ. ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ    ঘ. বিখ্যাত ব্যাকরণবিদ পাণিনি।

উত্তরঃ ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ।

৬. কে বহু ভাষাবিদ পণ্ডিত ও গবেষক ছিলেন?

ক. জর্জ আব্রাহম গ্রিয়ারসন খ. সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়

 গ. ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ    ঘ. বিখ্যাত ব্যাকরণবিদ পাণিনি।

উত্তরঃ ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ।

৭. ‘শিকওয়াহ ও জওয়াব ই শিকওয়াহ অনুবাদ গ্রন্থটি কে রচনা করেন?

 ক. আবুল কালাম শামসুদ্দীন খ. কাজী আবদুল ওদুদ গ. ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ।

 ঘ. ইব্রাহীম খাঁ।

উত্তরঃ ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ।

৮. ‘বাংলা ভাষার ইতিবৃত্ত’ কার রচনা?

ক. ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ খ. মুহম্মদ আবদুল হাই গ. মুনীর চৌধুরী ঘ. মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী।

উত্তরঃ ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ।

৯. ’চলিঞ্চু অভিধান’ কাকে বলা হয়?

 ক. রামনারায়ণ তর্করত্ন খ. হরপ্রসাদ শাস্ত্রী গ. ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর ঘ. ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ।

উত্তরঃ ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ।

১০. ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ রচিত গ্রন্থ কোনটি ?

ক. বাংলা ভাষার ইতিহাস খ. বাংলা ভাষার ইতিবৃত্ত গ. বাঙ্গালা ভাষার পুরাবৃত্ত ঘ. বাঙ্গালা ভাষা কথা

উত্তরঃ বাংলা ভাষার ইতিবৃত্ত।

১১.বাংলা একাডেমির বাংলাদেশের আঞ্চলিক ভাষার অভিধান সম্পাদনা করেন কে?

ক. ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ খ. মুহম্মদ এনামুল হক গ. মুহম্মদ মনসুরউদ্দীন   ঘ.মুহম্মদ আবদুল হাই।

উত্তরঃ ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ।

Leave a Comment