উচ্চমাধ্যমিকের ফল কি ফেসবুকের রিয়েক্ট দিয়ে যাচাই করা যেত না?

করোনায় গোটা দুনিয়া ভুগছে। ভুক্তভোগীদের মধ্যে বাংলাদেশের উচ্চমাধ্যমিকপড়ুয়ারা অন্যতম। কারণ জীবনের গুরুত্বপূর্ণ এক পরীক্ষা না দিয়েই ফল পেতে হচ্ছে তাঁদের। এ নিয়ে আলোচনা–সমালোচনা চলছে। এত কিছুর মধ্যেও উচ্চমাধ্যমিকের ফল নির্ধারণের বিকল্প এক পদ্ধতি (অবশ্যই সিরিয়াস কিছু নয়) নিয়ে ভেবেছে ‘একটু থামুন’। এ বছর হয়তো তা কাজে লাগবে না। তবে বিপদ–আপদের কথা তো বলা যায় না। এই পদ্ধতি ভবিষ্যতে কোনো এক দুর্যোগকালে কাজে লাগানো যেতে পারে...

সহজ একটি পরীক্ষা নেওয়া যায়। এবং পরীক্ষাটি নেওয়া যায় ফেসবুকেই। প্রথমে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে একটি ক্লোজড গ্রুপ খুলতে হবে। সেখানে মেম্বার হতে পারবেন কেবল পরীক্ষার্থীরাই। প্রয়োজনে সবার রেজিস্ট্রেশন নম্বর যাচাই করে গ্রুপের মেম্বারশিপ দেওয়া হবে। সব পরীক্ষার্থী মেম্বার হিসেবে যুক্ত হলে গ্রুপে একটি স্ট্যাটাস দেওয়া হবে। স্ট্যাটাসটি হবে এ রকম— ‘এবারের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা বাতিল করা হলো।’

এই পর্যায়ে স্ট্যাটাসে শিক্ষার্থীদের রিঅ্যাক্ট করতে বলা হবে। রিঅ্যাকশনের ওপর ভিত্তি করেই দেওয়া হবে নম্বর। রিঅ্যাকশনের মাধ্যমে বোঝা যাবে, শিক্ষার্থীরা কোন গ্রেড বা কত নম্বর পাওয়ার যোগ্য। বিষয়টি আমরা ব্যাখ্যা করছি—

উচ্চমাধ্যমিকের ফল যেভাবে নির্ধারণ করা যেত
উচ্চমাধ্যমিকের ফল যেভাবে নির্ধারণ করা যেত

উচ্চমাধ্যমিকের ফল যেভাবে নির্ধারণ করা যেত
উচ্চমাধ্যমিকের ফল যেভাবে নির্ধারণ করা যেত

উচ্চমাধ্যমিকের ফল যেভাবে নির্ধারণ করা যেত
উচ্চমাধ্যমিকের ফল যেভাবে নির্ধারণ করা যেত
উচ্চমাধ্যমিকের ফল যেভাবে নির্ধারণ করা যেত

সূত্র: প্রথমআলো

Leave a Comment