কীভাবে জীবনের লক্ষ্য খুজতে হয়?

আমরা অনেকের কাছে হয়তো শুনে এসেছি যে নিজের প্যাশনকে ফলো করো। জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণ করে লক্ষ্য পূরণ করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করো। কিন্তু আমরা অনেকেই নিজের জীবনের প্যাশন বা লক্ষ্য নিয়ে কোনো কিছু জানিনা। প্যাশনের পেছনে কি ছুটবো প্যাশন বলতে কি বোঝায় অনেকের কাছেই ব্যাপারটা ক্লিয়ার না। যদি আপনার অবস্থাও তাই হয় তাহলে আজকের এই লেখা আপনার জন্যই। আজকে আমরা আলোচনা করবো কিভাবে প্যাশন কি? কিভাবে নিজের প্যাশন ও লক্ষ্য খুজে পাবেন।

খুব সহজভাবে বলতে গেলে প্যাশন হল কোন একটা কাজ করার জন্য প্রবল ইচ্ছা। প্যাশন হল এমন একটা কাজ যেটা সত্যিই অর্থপূর্ণ। অর্থ্যাৎ সেই কাজটা এমন নয় যে, সে কাজটা আপনি শুধু ব্যক্তিগত স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য করেন। সে কাজটা আপনার কাছে আপনার চেয়েও বড়। যেমন, রাকিবের ইন্জিনিয়ারিং পড়ে। তার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হল ইন্জিনিয়ারিং শেষে একটা ভালো সার্টিফিকেট পাওয়া। আর ইন্জিনিয়ার হলে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবে এটাও একটা উদ্দেশ্য। সে কোনো কিছু শেখার জন্য নয় বরং ইন্জিনিয়ার হওয়ার পর কি কি করতে পারবে আর কি কি হবে সেটার দিকেই তার চিন্তা ভাবনা। অপরদিকে, সালাম ইন্জিনিয়ারিং পড়ে কারণ সে টেকনোলজী পছন্দ করে। সে শিখতে ভালোবাসে। সে নতুন টেকনোলজী তৈরি করতে ভালোবাসে এবং সে চিন্তা করে সে এমন এক প্রযুক্তি তৈরি করবে যা শুধু ধনীদের নয় বরং গরীবদের কাজে আসবে তারা উপকৃত হবে। সালামের কাছে ইন্জিনিয়ারিং হচ্ছে প্যাশন যা রাকিবের কাছে নয়।

প্যাশন হল তাই যা আপনাকে মোটিভেট করে, আপনি কাজ করে অনুপ্রাণিত হন এবং যত সেই কাজটা করেন তাতে বিরক্তি না এসে বরং আরো শেখার আগ্রহ বেড়ে যায়। অজয় আর সুজয় দুই বন্ধু। তারা একসাথে গিটার শেখা শুরু করে। প্রথম সপ্তাহ দুজনেই নিয়মিত গিটার ক্লাস করে আর সারাদিন গিটার নিয়ে পরে থাকে। এক সপ্তাহ পর অজয় গিটার ক্লাস মিস করতে শুরু করে। তার কাছে নানা অযুহাত থাকে এর জন্য। আর সুজয় যেন উল্টো। দিন দিন তার আগ্রহ বেড়েই চলেছে। ক্লান্তি বলতে যেন কোনো কথা নেই। এখানে সুজয়ের কাছে গিটার বাজানো হল প্যাশন।

আশা করা যায় এরই মধ্যে বুঝে গেছেন প্যাশন বলতে কি বোঝায়। এরপরের গুরুত্বপূর্ণ কাজ হল প্যাশন কিভাবে খুজে পাওয়া যাবে। সবার প্যাশন যে এক হবে তাতো না। এক্ষেত্রে আপনাকে সাহায্য করার জন্য আমি আপনাকে সাহায্য করছি। হাতে কাগজ কলম নিন অথবা কমেন্টে লিখবেন। কারণ আমি আপনাকে কিছু প্রশ্ন করতে যাচ্ছি।

প্রথম প্রশ্ন হল, আপনার কাছে সময় আর টাকার অভাব যদি না থাকতো তাহলে আপনি কোন কাজটা করে সময় কাটাতে পছন্দ করতেন?

দ্বিতীয় প্রশ্ন হল, আপনার মৃত্যুর পর আপনাকে আপনার কোন কাজের জন্য মানুষ মনে রাখলে আপনি অনেক খুশি হবেন?

তৃতীয় প্রশ্ন হল, আপনাকে যদি এমন ক্ষমতা দেওয়া হয় যে আপনি পৃথিবীর একটা সমস্যা সমাধান করে দিতে পারতেন তাহলে আপনি কোন সমস্যাটি সমাধান করতেন?

চতুর্থ প্রশ্ন হল, এমন একজন মানষের নাম বলুন যার মত হতে পারলে আপনি আপনার জীবন স্বার্থক বলে মনে করতেন?

উত্তর দেওয়ার আগে অবশ্যই ভেবে নিবেন। আর উত্তর না জানা থাকলে “জানিনা” লিখবেন। উত্তর লেখার ক্ষেত্রে তাড়াহুড়া করবেন না। না জানলেও যে কোন উত্তর লিখে এড়িয়ে যাবেন না। যদি আপনার উত্তর গুলোর মধ্যে দুটির প্রশ্নের উত্তর হয় জানিনা। তাহলে আপনি এখনো আপনার প্যাশনের দেখাই পান নি। আগেতো দেখা হোক তারপর শনাক্ত করা যাবে। তবে এ ক্ষেত্রে আপনাকে মাসে অন্তত একটা নতুন কাজ করার চেষ্টা করতে হবে।

আপনার এও মনে হতে পারে যে জীবনে প্যাশন ফলো করা কি খুবই জরুরী? এক্ষেত্রে কথা হল আপনার কাছে যদি জীবন মানে হল অনেক টাকা রোজগার করে আর পেট ভর্তি খাওয়া তাহলে প্যাশন আপনার জন্য না। আর যদি জীবন মানে হলে মানসিক শান্তি নিয়ে সুখে থাকা, অন্যের কাজে আসা, উপকার করা। তাহলে নিজের প্যাশন কে ফলো করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই।

ধরা যায়, সালমান পঞ্চাশ হাজার টাকা মাসিক বেতনের চাকরি করছে। যে চাকরিটা করছে তা তার একদমই পছন্দ না। সেখানের ৫ মিনিটও তার কাছে পাঁচ ঘণ্টা লাগে। তবুও সে সেই কাজটাই করে যাচ্ছে কারণ তার বেতন বেশি। সে ৬ দিন চোখ বুজে কাজ করবে আর সপ্তাহে ১ দিন ছুটি কাটাবে। মানে ৬ দিন মরবে আর একদিন সেটা পুষিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করবে। এমন কাজে তার উন্নতি করার সম্ভবনা কতটুকু?

আর তারই বন্ধু জামিল এমন একটা কাজ করে যার বেতন মাত্র ১০ হাজার। কিন্তু সেটা তার পছন্দের কাজ। কাজ করতে করতে তার কখন যে সময় পেরিয়ে যায় বলতেই পারেনা। তার আগ্রহ থেকেই যায় কাল আবার কখন সে কাজটা শুরু করতে পারবে। কাজে সে কিভাবে আরো উন্নতি করবে সে চিন্তাতেই বিভোর সে। এখন বলুন সে এই কাজে উন্নতি করবে কিনা? তার বেতন বৃদ্ধি পেয়ে একদিন আর বন্ধুর বেতনকে পেরিয়ে যাবে কিনা? তার চেয়ে বড় কথা হল সপ্তাহে সাত দিনই জামিল সুখে কাটায়।

তাহলে আশা করি পুরো বিষয়টি আপনার কাছে পরিষ্কার হয়েছে যে প্যাশন কি? কিভাবে খুজে পেতে হয় আর প্যাশন ফলো করলে কি কি হয়। তাই আর দেরী নয় প্যাশন খুজে পেলে কাজে লেগে পরুন আর না পেলে প্যাশন খুজে পেতে উপরের প্রশ্নগুলো ও আলোচনাটির সাহায্য নিন। ধন্যবাদ।

আরো পড়ুন

জেনে নিন অসফল মানুষদের ছয়টি অভ্যাস বা ব্যর্থ হওয়ার কারণ

কীভাবে ব্যর্থতা কাটিয়ে উঠবেন?

কোটিপতি ওয়ারেন বাফেট এর কিছু জীবন বদলে দেওয়া মূল্যবান উপদেশ

প্রকৃত ভালোবাসা আসলে কি?

কীভাবে প্রতিদিনের কাজ প্রতিদিন শেষ করবেন?

Leave a Comment