মানবতার ফেরিওয়ালা মুসলমান ফুটবলার সাদিও মানে

 


সেনেগালের প্রাণ ভমরা, সাবেক দল লিভারপুর অন্যতম সেরা খেলোয়াড়। জিতেছেন লিভারপুলের হয়ে সম্ভাব্য সব ধরণের শিরোপা। সম্প্রতি যোগ দিয়েছেন বায়ার্ন মিউনিখে। কোটি কোটি টাকার মালিক সে। সম্প্রতি এক ভিডিওতে দেখা যায় তার হাতে এক ভাঙা আইফোন। এটা নিয়ে বেশ আলোচনা সমালোচনা হয় যে তার মতো সেরা এক কোটিপতি খেলোয়াড়ের হাতে এক ভাঙা আইফোন কেনো? এক সাক্ষাতকারে তিনি জবাবও দিয়েছেন। চলুন যেনে নেওয়া যাক এর পেছনের কারণ।

সাংবাদিকরা তাকে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন যে দরকার হলে সার্ভিসিং করে নিবো। নতুন কেনার প্রয়োজন বোধ করিনি। এ কথায় সাংবাদিকরা হতভম্ব হয়ে যান। তারা বলেন আপনার মত সেলিব্রেটির এরকম কাজ কি মানায়। আপনি চাইলে অনেক নতুন আইফোন কিনে নিতে পারেন। সে সক্ষমতা আপনার আছে। সাদিও মানে এর যে জবাব দিয়েছেন তা জানলে আপনি কিছুক্ষণ থমকে দাড়াবেন অবাক হয়ে।

সাদিও মানে জানিয়েছেন যে, হ্যা আমি অবশ্যই আরো আইফোন কিনতে পারি, চাইলে মার্সিডিজ ব্রান্ডে গাড়ি, বিএমডাব্লিউ কিনতে পারি কিন্তু এর কোন একটাও কি আমার সাথে আমার কবরে যাবে? আমি চাইলে সেরা কয়েকটা বাড়ি দিতে পারি। কিন্তু কোনটাই আমার সাথে আমার কবরে যাবে না। আমি জীবনে অভাবের কারণে শিক্ষা অর্জন করতে পারিনি। আমি শিক্ষার মূল্য বুঝি। তাই আমাকে এ বিষয়ে কাজ করতে হবে। আমি নিজে গাড়ি কিনিনি কিন্তু যে সব স্কুল ও কলেজ গুলোতে বাস নেই। শিক্ষার্থীরা কষ্ট করে বিদ্যালয়ে যায় আমি তাদের যাতায়াত সহজ করার জন্য সে স্কুল কলেজগুলোতে বাস কিনে দিয়েছি।

দানশীলতার জন্যও বিখ্যাত সাদিও মানে। নিজের শহরে গড়ছেন হাসপাতাল, স্কুল, কলেজ। তার খেলার অধিকাংশ আয়ই যায় তার এসব কাজের পেছনে। তিনি ছোট থেকে যেসব সুযোগ সুবিধা বঞ্চিত ছিলেন সেসব যেনো তার এলাকার কোনো ছেলে মেয়ে কে না পেতে হয় সে জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন মানে। গরীবদের খাবার কেনা, জামা কাপড় কেনায় সুখ খুজে পান মানে।

সম্প্রতি বায়ার্নের বি টিমে তার সহায়তায় জায়গা করে নিতে পেরেছে তারই ড্রাইভার। তার গাড়ির চালক তার বন্ধুর মত। সে ভালোও খেলতো। তাই উদার মনের মানুষ বায়ার্নের স্টাফের সাথে যোগযোগ করে তার জন্য বি টিমে জায়গা করে দিয়েছেন।

এ থেকে বোঝা যায় সাদিও শুধু খেলোয়াড় হিসেবে সেরা নয় বরং মানুষ হিসেবেও সেরা। সবাই টাকা পয়সা থাকলেই যে অপচয় করে, দুনিয়ার পাগল হয়ে যায় এমনটা নয়।

0 মন্তব্যসমূহ